ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি : ইলমুল হাদীসে তাঁর অবদান

ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি : ইলমুল হাদীসে তাঁর অবদান

-প্রফেসর ড. সৈয়দ মাকসুদুর রহমান

সারসংক্ষেপ

ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি হাদীসের বিশুদ্ধতা নিরূপণে  অবিস্মরণীয় হয়ে আছেন, তাঁদের অন্যতম। তিনি খুরাসানের  নিশাপুরে নামক স্থানে ২০৪ হিজরি মোতাবেক ৮২০ খ্রিস্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন। মৃত্যুবরণ করেন ২৬১ হিজরির ২৬ শে রজব এবং নিশাপুরেই তাকে দাফন করা হয়।নিশাপুর বর্তমানে ইরানের অন্তর্ভুক্ত।উত্তরপূর্ব ইরানের খোরাসান প্রদেশের একটি শহর এবং নিশাপুর শহরিস্তানের (বিভাগ) রাজধানী। বিনালুদ পর্বতমালার পাদদেশে অবস্থিত এই শহরটি আগে খোরাসান প্রদেশের রাজধানী ছিল। ইমাম মুসলিম  রাহমাতুললাহ আলাইহি ছিলেন মুলত আরব বংশজাত।  ইলমুল হাদীসের এই নির্ভরযোগ্য মনিষির নাম ‘মুসলিম’, উপনাম ‘আবুল হুসাইন’ আর উপাধি আসাকিরুদ্দীন। তাঁর বংশপরম্পরা আরবের বিখ্যাত বংশ ‘কুশাইর’-এর সঙ্গে যুক্ত বলে তাঁকে কুশাইরিও বলা হয়। ইমাম মুসলিমের প্রাথমিক শিক্ষা নিশাপুরেই সম্পন্ন হয়। তার অনবদ্য গ্রন্থের নাম সহিহ মুসলিম।সহীহ মুসলিম হাদিস বিষয়ক একটি সুপ্রসিদ্ধ গ্রন্থ। এটি কুতুব আল-সিত্তাহ অর্থাৎ হাদীস বিষয়ক প্রধান ছয়টি গ্রন্থের দ্বিতীয় গ্রন্থ।সহীহ্ মুসলিম এর নাম

(هو المسند الصّحيح المُختصر من السّنن بنقل العدل عن العدل إلى رسول الله صلّى الله عليه وسلّم، وقد استُخدِم اسم صحيح مسلم اختصاراً)

ভূমিকা

ছয়টি বিশুদ্ধ গ্রন্থ বা কুতুবুস সিত্তার মধ্যে সহীহ মুসলিম’ হাদীসের অন্যতম একটি গ্রন্থের নাম। ইমাম মুসলিম ইবন হাজ্জাজ ইবনে মুসলিম আল কুশাইরী হলেন এই মহান গ্রন্থের  অন্যতম সংকলক। বর্তমান ইরানের বৃহত্তর খোরাসান প্রদেশের নিশাপুরে ২০৪ হিজরিতে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। মৃত্যুবরণ করেন ২৬১ হিজরির ২৬ শে রজব এবং নিশাপুরেই তাকে দাফন করা হয়।

তার অন্যান্য সংকলনের মধ্যে সহীহ মুসলিম হলো সবচেয়ে প্রসিদ্ধ ও গ্রহণযোগ্য। মুসলিম হাদীস বিশারদদের সর্ব সম্মত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কুরআন মাজিদের পর পৃথিবীর বুকে বিশুদ্ধতম দ্বিতীয় গ্রন্থ হলো ‘সহীহ মুসলিম’। শক্তিশালী পরিকল্পনার পাশাপাশি অত্যন্ত যত্নের সাথে গুছিয়ে ইমাম মুসলিম তৈরি করেছেন সংকলনটি। উক্ত কর্মটি সম্পন্ন করতে তার সময় লেগেছে প্রায় পনেরো বছর। আবু আলী নায়সাবুরী বলেন: ‘আসমানের নিচে ইলমে হাদীস সংক্রান্ত ইমাম মুসলিমের কিতাব অপেক্ষা বিশুদ্ধতম কোন কিতাব নাই।

ইমাম মুসলিম (রহ.)-এর নাম

আল-ইমাম আল-হাফেজ হুজ্জাতুল ইসলাম আবুল হুসাইন মুসলিম ইবনুল হাজ্জাজ বিন ওরদ বিন কুশাজআল-কুশিয়ারী আন-নায়সাবুরী তাকে ইবন আসাকির আল দীন হিসেবে ভূষিত করা হয়।

নাম বিশ্লেষণ

* আবূল হুসাইন: কুনিয়াত এর দ্বারা উদ্দেশ্য হলো The nickname: what makes a flag on a person other than the name and surname, towards: Abu al-Hassan, the mother of good, and it is pronounced verbally by a father, son or daughter, or brother or sister, or uncle or aunt

* মুসলিম ইবন হাজ্জাজ
* ইবন ওরদ অথবা ওয়ারদ
* ইবন কুশাজ অথবা কুশীষ
* আল কুশাইর বলার কারণ হলো

He belonged to a noble Arab tribe called “Qeshir”, and his family was known for its good behavior and broad culture, as his father was always at the head of the audience in various circles of knowledge.

* নিশাপুরী (উত্তরপূর্ব ইরানের খোরাসান প্রদেশের একটি শহর এবং নিশাপুর শহরিস্তানের (বিভাগ) রাজধানী। বিনালুদ পর্বতমালার পাদদেশে অবস্থিত এই শহরটি আগে খোরাসান প্রদেশের রাজধানী ছিল।)

His full name is Abu Al-Hussein Muslim bin Al-Hajjaj bin Muslim bin Ward bin Kushish al-Qushairi al-Naqshbari and he occupied a prominent fame in the science and narration of the hadith as Saad is one of the leaders of scholars and keepers of the narrations of the Prophet, peace and blessings be upon him in the hadiths of the Prophet

ইমাম মুসলিম (রহ.)-এর জম্মগ্রহণ

ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি -২০২ হিজরি  এবং ৮১৭  সনে  ১১৭৩ বছর পূর্বে মতান্তরে ২০৬/৮২১ অথবা ২০৪/৮১৯ সনে খুরাসানের অন্তর্গত নায়সাবুরে বা নিশাপুরে জন্মগ্রহণ করেন । তিনি নির্ভেজাল আরব বংশজাত । তার পরিবারের আদি বাসস্থান নায়সাবুর বা নিশাপুরে যা উত্তরপূর্ব ইরানের খোরাসান প্রদেশের একটি শহর এবং নিশাপুর শহরিস্তানের (বিভাগ) রাজধানী। বিনালুদ পর্বতমালার পাদদেশে অবস্থিত এই শহরটি আগে খোরাসান প্রদেশের রাজধানী ছিল।

Born after 815 Nishapur, Khorasan (in present-day Iran

ولد الإمام مسلم

في عام 202 هجري (817 م) وقد يكون ولد وفقا لروايات أخري عام  204 هجرية (819 م) ,أو 206 هجرية (821 م) في نيسابور والتي يطلق عليها محافظة عباسي خراسان (اليوم الموجود في إيران).

– كان ينتمي إلى قبيلة عربية نبيلة تدعى “قُشير”كما اشتهرت عائلته بحسن سلوكها وثقافتها الواسعة حيث كان والده دائما علي رأس الحضور في مختلف دوائر المعرفة كما كان رجلا معروفا بأخلاقه الرفيعة

He belonged to a noble Arab tribe called “Qeshir”, and his family was known for its good behavior and broad culture, as his father was always at the head of attendance in various knowledge circles, as he was a man known for his high morals

 ইমাম মুসলিম (রহ.)-এর শিক্ষাজীবন

ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি ২১৮ হিজরিতে মাত্র ১৪ বছর বয়সে ইলমুল হাদীসের শিক্ষায় গভীর ভাবে মো প্রদান করেন । তিনি জন্মস্থান নিশাপুরের বিখ্যাত মুহাদ্দিসদের নিকট থেকে হাদীস সংগ্রহ করেন। তারপর তিনি তৎকালীন ইলমুল হাদীসের সব কেন্দ্রেই ইলম অর্জন করতে সফর করেন। হাদীসের এক বিশাল ভাণ্ডার আত্মস্থ করেছেন। তিনি একাধিকবার বাগদাদ সফর করেছেন। তিনি সেখানে প্রসিদ্ধ মুহাদ্দিসগনের নিকট থেকে গভীর ইলম অর্জন করেন। তিনি সর্বশেষ বাগদাদ সফর করেন ২৫৯ হিজরিতে। ২১১ জন বিশিষ্ট মুহাদ্দিসের কাছ থেকে ইলমুল হাদীসের  শিক্ষা গ্রহণ করেন এবং হাদীস স সংগ্রহের কাজ করেন। ইমাম বুখারী রাহমাতুললাহ আলাইহি ছিলেন ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি এর উস্তাদ ছিলেন।

ইলম অর্জনের জন্য দেশ ভ্রমণ

ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি হাদীস শিক্ষার উদ্দেশে তৎকালীন মুসলিম জাহানের সবগুলি কেন্দ্রেই গমন করেন। বিশেষতঃ

ইরাক
(ইরাক সরকারিভাবে ইরাক প্রজাতন্ত্র, একটি মধ্যপ্রাচ্যের রাষ্ট্র। বাগদাদ ইরাকের রাজধানী। ইরাকের দক্ষিণে কুয়েত এবং সৌদি আরব, পশ্চিমে জর্ডান, উত্তর-পশ্চিমে সিরিয়া, উত্তরে তুরস্ক এবং পূর্বে ইরান (কোর্দেস্তন প্রদেশ (ইরান) অবস্থিত।

হিজায

বর্তমান সৌদি আরবের পশ্চিম অংশ। এর পশ্চিমে লোহিত সাগর, উত্তরে জর্ডান, পূর্বে নজদ ও দক্ষিণে আসির অবস্থিত। এর প্রধান শহর জেদ্দা। তবে ইসলামের পবিত্র শহর মক্কা ও মদিনার জন্য এই অঞ্চল অধিক পরিচিত। ইসলামের পবিত্র স্থানের অবস্থানের কারণে হেজাজ আরব ও ইসলামি বিশ্বে ঐতিহাসিক ও রাজনৈতিক দিক দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ। পশ্চিমে তিহামাহ থেকে পূর্বের নজদকে পৃথক করেছে বলে এই অঞ্চলের এরূপ নাম হয়েছে। এটি “পশ্চিম প্রদেশ” বলেও পরিচিত

মিশর
আফ্রিকা মহাদেশের উত্তর-পূর্ব কোণে ও এশিয়া মহাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে অবস্থিত একটি আন্তঃমহাদেশীয় ভূমধ্যসাগরীয় রাষ্ট্র। এর পূর্ণ সরকারী নাম মিশর আরব প্রজাতন্ত্র। প্রাচীন যুগে মিশর সমগ্র বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীন ও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি সভ্যতা ছিল।

বাগদাদ
ইরাকের রাজধানী। দজলা নদীর সহ বহুবিধ জাতিগোষ্ঠি ও বহুবধর্মীয় ব্যক্তিবর্গের আতিথ্যের জন্য এই শহরটি “জ্ঞানের শহর” হিসাবে বিশ্বব্যাপী খ্যাতি অর্জন করেছিল।

(দজলা দক্ষিণ-পশ্চিম এশিয়ার একটি নদী। নদীটি তুরস্কে উৎপত্তি লাভ করে ইরাকের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে ফোরাত নদীর সাথে মিলিত হয়েছে এবং শাত আল আরব নামে পারস্য উপসাগরে পড়েছে। নদীর তীরে অবস্থিত এ শহরটি ৮ম শতাব্দীতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।আব্বাসীয় খিলাফতের আমলে এটি রাজধানীতে পরিণত হয়। প্রতিষ্ঠার অল্প সময়ের মধ্যেই বাগদাদ মুসলিম বিশ্বের এক গুরুত্বপূর্ণ সাংস্কৃতিক, বাণিজ্যিক এবং বুদ্ধিবৃত্তিক কেন্দ্র হিসাবে বিকশিত হয়েছিল। অন্যতম কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (যেমন, বাইতুল হিকমাহ) উক্ত অঞ্চল ব্যাপকভাবে ভ্রমণ করেন। সেখানে অবস্থানকারী হাদীসের  মুহাদ্দিসগনের নিকট থেকে হাদীস শিক্ষা ও  হাদীস সংগ্রহ করেন ।

তিনি এ সকল স্থানের ইমাম বুখারী রাহমাতুললাহ আলাইহি (মৃত্যুঃ ২৫৬ হিঃ) এর অনেক উস্তাদের নিকট থেকে হাদীস সংগ্রহ করেন।  এ ছাড়া অন্য মুহাদ্দিসগণের নিকট থেকেও হাদিস শ্রবণ ও গ্রহণ করেন । ইমাম মুসলিম সর্বপ্রথম ২১৮/৮১৩ সনে হাদীসের দারসে অংশে গ্রহন করেন । এ ছাড়া যাদের নিকট থেকে হাদীস গ্রহণ করেন তাদের মধ্যে অন্যতম

* ইয়াহইয়া আত-তামীমী আন-নায়সাবুরী রাহমাতুললাহ আলাইহি
* আল-কা’নাবী,রাহমাতুললাহ আলাইহি
* আহমাদ ইবনে ইউনুস, ইসমা’ঈল ইবনে আবী উইয়াস,

* সা’ঈদ ইবনে মানসূর রাহমাতুললাহ আলাইহি
* আউন ইবনে সাল্লাম রাহমাতুললাহ আলাইহি
* আহমাদ ইবনে হাম্বল – রাহমাতুললাহ আলাইহি
এ সকল প্রখ্যাত হাদিসবিদ ছাড়া আরও অনেকের নিকট তিনি হাদিসের পাঠ গ্রহণ করতেন ।

এ ছাড়া ইমাম শাফি’ঈ- রাহমাতুললাহ আলাইহি এর ছাত্র হারমালা  রাহমাতুললাহ আলাইহি এবং প্রখ্যাত মুহাদ্দিস ইসহাক ইবনে রাহুইয়াহ-র নিকট থেকেও তিনি হাদিস  শ্রবণ করেন। তিনি একাধিকবার বাগদাদ সফর করেন । তাঁর সর্বশেষ বাগদাদ সফর ছিল হিজরী ২৫৯ সনে। বাগদাদের হাদীস বিশারদদের  নিকট থেকে শ্রবণ ও বর্ণনা করেছেন।

ইমাম মুসলিম (রহ.)-এর শিক্ষকবৃন্দ

ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি বিভিন্ন মুহাদ্দিসের কাছ ইলমুল হাদীস গ্রহণ করেন। তাদের মধ্যে অন্যতম

* ইমাম আল-বুখারী ররাহমাতুললাহ আলাইহি

* ইমাম আহমদ বিন হাম্বল রাহমাতুললাহ আলাইহি

* ইমাম আবদুল্লাহ আল দারিমি রাহমাতুললাহ আলাইহি
* ইয়াহইয়া ইবনে ইয়াহিয়া আল-নিসাবুরী রাহমাতুললাহ আলাইহি

* আবু খিতিমাহ জুহাইর বিন হামদ রাহমাতুললাহ আলাইহি
* কুতাইবা বিন সাঈদ রাহমাতুললাহ আলাইহি
* মুহাম্মদ বিন ইয়াহইয়া বিন আবি ওমর,

* ইসহাক বিন রাহওয়াহ, রাহমাতুললাহ আলাইহি
* আবু কুরাইব মুহাম্মদ বিন আল-আলা,
মুহাম্মদ বিন ইয়াহিয়া আল-দাহলি রাহমাতুললাহ আলাইহি
* হানাদ বিন আল-সাররি রাহমাতুললাহ আলাইহি

* ইসহাক আল-কোসাজ রাহমাতুললাহ আলাইহি

* আবু মুসা মুহাম্মদ বিন আল-মুসান্না রাহমাতুললাহ আলাইহি

ইমাম মুসলিম এর প্রসিদ্ধ ছাত্রবৃন্দ

ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি এর নিকট থেকে অসংখ্য ছাত্রবন্দ ইলমুল হাদীসের শিক্ষা গ্রহণ করেছেন। তাদের মধ্যে অন্যতম হলো –

*ইমাম আল-তিরমিযী রাহমাতুললাহ আলাইহি
*আবদ-রহমান ইবনে আবী হাতেম আল-রাজি রাহমাতুললাহ আলাইহি
*মুহাম্মদ ইবনে ইসহাক ইবনে খুজায়মাহ রাহমাতুললাহ আলাইহি
*আল-ফাদল আল-বালখী রাহমাতুললাহ আলাইহি

আবু আওনা আল-ইসফারানী রাহমাতুললাহ আলাইহি
*মুহাম্মদ ইবনে আবদুল-হামিদ রাহমাতুললাহ আলাইহি
আলী ইবনে ইসমাঈল আল-সাফার রাহমাতুললাহ আলাইহি
আবদুল্লাহ ইবনে হাফিজ আল বালখী রাহমাতুললাহ আলাইহি
* ইব্রাহিম আব্বানী  রাহমাতুললাহ আলাইহি
*আহমেদ বিন নসর আল-খাফফ রাহমাতুললাহ আলাইহি প্রমুখ।
ইমাম মুসলিম এর প্রশংসা  ثناء العلماء على الإمام مسلم
قال أبو قريش الحافظ: سمعت محمد بن بشار يقول: “حُفَّاظ الدنيا أربعة: أبو زرعة بالري، ومسلم بنيسابور، وعبد الله الدَّارِمِي بسمرقند، ومحمد بن إسماعيل ببخارى”.

Abu Quraysh al-Hafiz said: I heard Muhammad ibn Bashar say: “The keepers of the world are four: Abu Zarah by irrigation, Muslim by Nisabur, Abdullah al-Darimi in Samarkand, and Muhammad ibn Ismail in Bukhara.”

ونقل أبو عبد الله الحاكم أن محمد بن عبد الوهاب الفراء قال: “كان مسلم بن الحجاج من علماء الناس، ومن أوعية العلم”.

Abu Abdullah al-Hakim reported that Muhammad ibn Abd al-Wahhab al-Fur said: “Muslim ibn al-Hajjaj was one of the scholars of people and among the vessels of knowledge.”

وقال الحافظ أبو علي النيسابوري: “ما تحت أديم السماء أصحُّ من كتاب مسلم في علم الحديث”.

Al-Hafiz Abu Ali Al-Nisaboori said: “What is under the perpetual sky is more authentic than a Muslim’s book on hadith.”

وقال عنه صاحب أبجد العلوم (صديق بن حسن القنوجي): “والإمام مسلم بن الحجاج القشيري البغدادي أحد الأئمة الحفاظ، وأعلم المحدثين، إمام خراسان في الحديث بعد البخاري

And the author of Abjad Al-Ulum (Siddiq bin Hassan Al-Kanuji) said: “And Imam Muslim bin Al-Hajjaj al-Qushairi al-Baghdadi is one of the imams who preserve.

ইমাম মুসলিম (রহ.)-এর মাজহাব

قيل عن مسلم أنه شافعي المذهب نظرا لتبويبات صحيحه
“والصواب أن التبويبات من وضع الإمام النووي
” وقيل عنه حنبلي المذهب ونصص على هذا ابن القيم في الإعلام لكنه كان دقيقا فقال: مسلم وأبو داود من أصحاب أحمد وهذا صواب باعتبار أن لكل منها سؤالات للإمام أحمد، فأما سؤالات مسلم له فمفقودة في حين أن سؤالات أبي داود مطبوعة …. وترجم أبو يعلى للإمام مسلم في كتابه طبقات الحنابلة وتبعه العليني في المنهج الأحمد .. ووقع لمسلم إسناد مسلسل بالأئمة المالكية فظنه بعضهم
? مالكيا .. والصواب أن مسلما إمام محقق له اختياراته الفقهية الخاصة.[فوائد من شرحه لمسلم

It was said about a Muslim that he is a Shafi’i madhhab due to his correct texts. “It is correct that the taboos are from the position of Imam al-Nawawi.” Hambali said about him and stipulated this Ibn al-Qayyim in the media, but he was careful. He said: Muslim and Abu Dawood are among the companions of Ahmad.  As for the questions of a Muslim for him, they are missing, while the questions of Abu Dawood are printed …. Abu Ali was translated by Imam Muslim in his book, The Hanbali Layers, and Al-Alini followed him in the Ahmad’s curriculum .. And a Muslim signed a chain of assignment to the Maliki imams, some of whom believed him to be a royal …  Private jurisprudence. [Benefits from his explanation of a Muslim

সহীহ মুসলিম গ্রন্থ রচনা করার কারন

ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি তার আস-সহিহর ভূমিকায় ‘সহিহ’ রচনার কারণ সম্পর্কে দুটি বিষয় উল্লেখ করেছেন।

* ১) ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি -এর প্রসিদ্ধ ছাত্র আবু ইসহাক ইব্রাহিম রাহমাতুললাহ আলাইহি তাঁর কাছে একটি উন্নতমানের সহিহ হাদীস সগ্রন্থ সংকলন করার জন্য অনুরোধ জানান।  তিনি তার ছাত্রের অনুরোধ রক্ষা করেন। ইমাম মুসলিম তার কিতাবের ভূমিকায় তিনি তাঁর ছাত্রের জন্য দোয়া করেছেন। যেমন –

*فإنك يرحمك الله بتوفيق خالقك ذكرت أنك هممت بالفحص عن تعرف جملة الأخبار المأثورة عن رسول الله في سنن الدين وأحكامه، وما كان منها في الثواب، والعقاب، والترغيب، والترهيب وغير ذلك من صنوف الأشياء بالأسانيد التي بها نقلت وتداولها أهل العلم فيما بينهم

এর পর তিনি বলেন,

*، فأردت -أرشدك الله- أن توقف على جملتها مؤلفة محصاة، وسألتني أن ألخصها لك في التأليف بلا تكرار يكثر، فإن ذلك -زعمت مما يشغلك عما له قصدت من التفهم فيها والاستنباط منها، وللذي سألت أكرمك الله حين رجعت إلى تدبره وما تؤول به الحال إن شاء الله عاقبة محمودة ومنفعة موجودة،

তিনি বলেন,

*وظننت حين سألتني تجشم ذلك أن لو عزم لي عليه وقضي لي تمامه كان أول من يصيبه نفع ذلك إياي خاصة قبل غيري من الناس لأسباب كثيرة يطول

* بذكرها الوصف، إلا أن جملة ذلك أن ضبط القليل من هذا الشان وإتقانه أيسر على المرء من معالجة الكثير منه ولا سيما عند من لا تمييز عنده من العوام إلا بأن يوقفه على التمييز غيره فإذا كان الأمر في هذا كما وصفنا فالقصد منه إلى الصحيح القليل أولى بهم من ازدياد السقيم

* ২) ইমাম মুসলিম (রহ.) দ্বিতীয় কারণটি এভাবে উল্লেখ করেছেন_কেবল তোমার ইচ্ছা পূরণ করতে গিয়ে সহীহ হাদীস সগুলো বাছাই করার কষ্ট স্বীকার করা আমার পক্ষে সম্ভব হতো না।

কিন্তু আমি যখন জানতে পারলাম যে তথাকথিত মুহাদ্দিসরা সাধারণ মানুষের মধ্যে মিথ্যা ও মুনকার হাদীস সগুলো ছড়িয়ে দিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করছে,। ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি বলেন, তখন তোমার অনুরোধে সাড়া দেওয়া আমার জন্য আরো সহজ হয়ে গেল। ইমাম মুসলিম  রাহমাতুললাহ আলাইহি মাও’জু ও দুর্বল হাদীস থেকে সহীহ হাদীস বেছে বের করার লক্ষ্যে কিছু কঠিন শর্তের ভিত্তিতে কাজটি সুচারু রুপে সম্পন্ন করেন। তিনি বলেন,

وقد انتقى الإمام مسلم أحاديث صحيحه من بين ألوف الأحاديث، فقد جاء عنه أنه قال: “صنفت هذا المسند الصحيح من ثلاثمئة ألف حديث مسموعة

Imam Muslim narrated authentic ahaadeeth from among the aloof ahaadeeth, but he said to himself:

যাচাই-বাছাই করার শর্ত

ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি  এর হাদীস যাচাই বাছাই করা শর্ত সমূহ হলো – সহীহ মুসলিম গ্রন্থের মোট অধ্যায় : ৫৪ টি প্রথম অধ্যায় : কিতাবুল ঈমান এবং শেষ অধ্যায় :কিতাবুত তাফসীর । মোট হাদিসের সংখ্যা ৭২৭৫ এবং তাকরার ব্যতীত ( ৪০০০) চার হাজার।

*১) মুত্তাসিলুস্ সনদ (متصل السند ) এর দ্বারা উদ্দেশ্য রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পর্যন্ত হাদীস বর্ণনাকারীদের পরম্পরা ধারাবাহিক হতে হবে।

The purpose of this is that the tradition of the narrators of the hadith should be continuous till the time of the Prophet (peace be upon

কোনো পর্যায়ে কোনো বর্ণনাকারীর নাম অজ্ঞাত থাকলে তিনি ওই সনদে কোনো হাদীস গ্রহণ করেননি।কারন  এটাই মুত্তাসিল সনদের শর্ত হলো।

*২) সাকাতুর রাবি (ثقة الراوي ) রাবি বা হাদিস বর্ণনাকারী নির্ভরযোগ্য হতে হবে। কোনো বর্ণনাকারীর মধ্যে ন্যায়পরায়ণতার অভাব থাকলে, বর্ণনাকারী বর্ণিত হাদিসের বিপরীত আমল করলে তিনি তাঁর কোনো হাদিস গ্রহণ করেননি।

The narrator of the hadith must be reliable.  If there is a lack of justice in a narrator, if the narrator acts contrary to the narrated hadith, he does not accept any of his hadith.

 *৩) معنعن ক্ষেত্রে অবশ্যই المعاصرة শর্ত।  হাদীস বর্ণনাকারী তাঁর ঊর্ধ্বতন বর্ণনাকারীর সমকালীন হওয়া। বর্ণনাকারী আর তিনি যাঁর কাছ থেকে হাদীস  বর্ণনা করছেন উভয়েই সমকালীন হওয়া।

 *৪) জবতুর রাবি( ضبط الراوي ) অর্থাৎ বর্ণনাকারীর স্মরণশক্তি প্রখর হওয়া। কারণ রাবির স্মরণশক্তি প্রখর না হলে তাঁর পক্ষে মহানবী (সা.)-এর বাণীকে নির্ভুলভাবে সংরক্ষণ করা সম্ভব নয়।

That is, the narrator’s memory is sharp.  Because if the memory of the rabbi is not strong, it is not possible for him to preserve the words of the Prophet (peace be upon him) accurately

*৫) ইমাম মুসলিম  রাহমাতুললাহ আলাইহি এর পঞ্চম শর্ত হলো

বর্ণিত হাদিসের মতন বা মূল বক্তব্য সব ধরনের দোষ-ত্রুটি থেকে মুক্ত হতে হবে।

Like the narrated hadith or the original statement should be free from all kinds of faults and errors.আব্বাসি যুগের কবি ইবন দা’বী আল শায়বানী বলেন,

تنازع قوم في البخاري ومسلم

لديَّ وقالوا أي ذين يقدم

فقلت لقد فاق البخاري صنعة

كما فاق في حسن الصياغة مسلم

People fought in Bukhari and Muslim

I have and they said which one to serve

So I said, Bukhari has surpassed workmanship

He also outperformed Muslim

ইমাম মুসলিম (রহ.) কর্তৃক সহিহ হাদীস  নির্বাচনে ওই যাচাই-বাছাইয়ের কারণেই অনেকে  সহীহ মুসলিমকে সহীহ বুখারি ওপর প্রাধান্য দিয়েছেন।

*ইবনে হাজার রাহমাতুললাহ আলাইহি বলেছেন, ‘সহিহ মুসলিম রচনার পর থেকে আজ পর্যন্ত মুহাদ্দিসদের কাছে যতখানি সমাদৃত হয়েছে, ততখানি সমাদর আর কোনো গ্রন্থ লাভ করতে পারেনি।’

*وقال مسلمة بن قاسم : ثقة جليل القدر من الأئمة

Muslimah bin Qasim said: The great confidence of the Imams is among the imams

*আবু আলী নিশাপুরী রাহমাতুললাহ আলাইহি বলেছেন, ‘মুসলিমের গ্রন্থ অপেক্ষা বিশুদ্ধতর কোনো গ্রন্থ আর নেই

*وقال شيخه محمد بن عبد الوهاب الفراء : كان مسلم من علماء الناس وأوعية العلم ، ما علمته إلا خيراً

Muslim was one of the scholars of people and the vessels of knowledge, I learned only good

*وقال النووي: أجمعوا على جلالته وإمامته ، وعلوِّ مرتبته وحذقه في الصنعة وتقدمه فيها .

They unanimously agreed to his majesty and his imam, ascending his rank and his skill in workmanship and advancing it.

ইমাম মুসলিম (রহ.)-এর গ্রন্থ

(Books of Imam Muslim Rahmatullah Alai
তার বিখ্যাত হাদিস সংকলণ “আস-সাহীহ” ছাড়াও নিম্নলিখিত গ্রন্থাবলীর  ইতিহাস পাওয়া যায়। তবে এর অনেক গ্রন্থের অস্তিত্ব বর্তমান পাওয়া যায় না।

 عدد من المؤلفات أغلبها في علوم الحديث وصلنا بعضها ولا يزال بعضها مفقوداً، ومن أهم مؤلفاته

A number of books, most of them in hadith sciences, have come together, some are still missing, and some of his most important books are

صحيح مسلم،
ثاني أصحّ كتاب في الحديث النبوي عند أهل السنة والجماعة بعد صحيح البخاري.


১. আল-মুসনাদ আল-কাবীর (المسند الكبير )

২. কিতাব আল-জামি ‘আলা আল-আবওয়াব (كتاب الجامع على الابواب)

৩. কিতাব আল-আসমা’ ওয়া আল-কুনা (الكنى والأسماء)

৪. কিতাব আল-তাময়ীয التمييز (وهو كتاب في علل الحديث))

৫. কিতাব আল-ইফরাদ ( الافراد)

৬. কিতাব আল-আকরান (الأقران)

৭. কিতাবু সুওয়ালাতিহি আহমাদ ইবনে হাম্বল ( كتاب سوالته احمد ابن حنبل)

৮. কিতাব আল ‘ইলাল ওয়া কিতাব আল-ওয়াহদান ( العلال والوحدان)

৯. কিতাবু হাদিসে ‘আমার ইবনে শূ’আইব (طبقات التابعين ورجال عروة بن الزبير)

১০. কিতাব আল-ইনতিফা বি-উহুব আল-সিবা’

১১. কিতাবু মাশায়িখ শু’বা (مشايخ شعبة)

১২. কিতাবু মাশায়িখ মালিক مشايخ مالك
ওয়া কিতাবু মাশায়িখ আল-সাওরী (مشايخ الثوري)

১৩. কিতাবু মান লায়সা লাহু ইল্লা রব্বিন ওয়াহিদ

১৪. কিতাব আল-মুখাদরামিন

১৫. কিতাব আওলাদ আল-সাহাবা (أولاد الصحابة)

১৬. কিতাবু আওহাম আল-মুহাদ্দিসীন (أوهام المحدثين)

১৭. কিতাব আল-তাবাকাত (الطبقات)

১৮. কিতাবু আফরাদ আল-শামিয়্যীন ।
*ذكر أولاد الحسين

*الإخوة والأخوات
*طبقات التابعين ورجال عروة بن الزبير

المنفردات والوحدان

সহীহ মুসলিমের নাম

قد جاء ذلك في بعض الروايات عن الإمام مسلم، فإنه لما عرض كتابه الصحيح على أبي زرعة الرازي قال: “عرضت كتابي هذا المسند على أبي زرعة الرازي”
الجامع

*المسند الصحيح المختصر من السنن بنقل العدل عن العدل عن رسول الله

(আল মুসনাদ আল সহীহ্ আল মুখতাসার মিনাস সুনান বিনাকলিল আদলে আনিল আদল আন রাসূলিল্লাহি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)

و لكن يُرجَّح على أنه وصف للكتاب لا إسما له.

সহীহ্ মুসলিমের প্রসিদ্ধ ব্যাখ্যা গ্রন্থ

* ইমাম আন নববী (1) المنهاج في شرح الجامع الصحيح للحسين بن الحجاج)
: وهو شرح للإمام النووي الشافعي المتوفى سنة (676هـ) ، وهو شرح وسط جمع عدة شروح سبقته ، ومن أشهر شروح صحيح مسلم.

মুহাম্মদ ইবন আলী আল মারুযী (2) المعلم بفوائد كتاب صحيح مسلم)
: وهو شرح المازري أبي عبد الله محمد بن علي المتوفى سنة (536 هـ) .

* কাযী আয়াজ (3) إكمال المعلم في شرح صحيح مسلم)
: وهو شرح للقاضي عياض بن موسى اليحصبي السبتي إمام المغرب المالكي المتوفى سنة (544 هـ).

*(4) المفهم لما أشكل من تلخيص كتاب مسلم

আবু আব্দুল্লাহ মুহাম্মদ ইবন খলিফা (إكمال إكمال المعلم) *(5)  : وهو شرح الأبي المالكي وهو أبو عبد الله محمد بن خليفة من أهل تونس ـ والأبي نسبة إلى ” أبة ” من قرى تونس ـ المتوفى سنة (728 هـ) ، جمع في شرحه بين المازري وعياض والقرطبي والنووي .

জালাল উদ্দিন আস সুযূতী (الديباج على صحيح مسلم بن الحجاج) *(6)  : وهو شرح الإمام جلال الدين السيوطي المتوفى عام (911 هـ).

যাকারিয্য আনসারি ( شرح لصحيح مسلم ) *(7) شرح شيخ الإسلام زكريا الأنصاري الشافعي المتوفى (926 هـ).

*(8) شرح الشيخ علي القاري الحنفي نزيل مكة المتوفى سنة (1016 هـ) وشرحه في أربع مجلدات .

*মুহাম্মদ আল আমীন আল হারারীআল মাক্কী আশ শাফিয়ী (خلاصة القول المفهم على تراجم جامع مسلم الامام)

*সাবত ইবনুল আজামী (تحفة المنجد و المتهم في غريب صحيح مسلم )

* মুহাম্মদ আমীন আল হারারী ( الكوكب الوهاجوالروض البهاج في شرح صحيح مسلم ابن الحجاج )

* শাব্বীর আহমদ উসমানী (فتح الملهم بشرح مسلم )

*মুহাম্মদ হারাবী হানাফী (فضل المنعم في شرح صحيح مسلم )

* আবুল আব্বাস আল কুরতুবী (المفهم لما أشكل من تلخيص كتاب مسلم ):
شرح أبي العباس أحمد بن عمر بن إبراهيم القرطبي المتوفى سنة (611هـ) .

* মুহাম্মদ তাকী উসমানী ( تكملة فتح الملهم بشرح صحيح مسلم )

ইমাম মুসলিম (রহ.)-এর মৃত্যু

ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি ২৬১ হিজরির ও ৮৭৫ সনের ২৫শে রজব রোববার নায়সাবূরে মৃত্যুবরণ করেন। নায়সাবূরের শহরতলী নাসরাবাদে ২৬শে রজব সোমবার তাকে দাফন করা হয় । তার জন্মের সন সম্পর্কে মতভেদ থাকায় মৃত্যুকালে তার সঠিক বয়স সম্পর্কেও মতপার্থক্য দেখা যায় ।

উপসংহার

উপরের আলোচনা থেকে আমরা বলতে পারি যে, ইমাম মুসলিম রাহমাতুললাহ আলাইহি একজন প্রখ্যাত হাদীস সংকলনকারী। তিনি লক্ষ হাদীসসমূহ থেকে মাত্র সাত হাজার হাদীস সংকলন করছেন। আজ অবধি উম্মত একমত যে সহীহ্ বুখারীর পর সহীহ্ মুসলিম অধিক বিশুদ্ধ ও গ্রহণযোগ্য হাদিসের কিতাব। এ কিতাবের সংকলনের শৈল্পিক মান সকল মুহাদ্দিসকে আকর্ষিত করেছে।  তিনি প্রায় ষাট বছর জীবনে হাদিসের যে খেদমত করেছেন, তা সত্যিই আল্লাহ তা’আলার বিশেষ রহমত ছাড়া সম্ভব নয়।

লেখক:
প্রফেসর ড. সৈয়দ মাকসুদুর রহমান
চেয়ারম্যান, আল হাদীস অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *