দুই কিডনিই অকার্যকর, কলেজশিক্ষকের মানবিক আবেদন

দুই কিডনিই অকার্যকর, কলেজশিক্ষকের মানবিক আবেদন

দুই কিডনিই অকার্যকর ঢাকা সাভারের বিরুলিয়া আকরান বাজারের একটি কলেজের শিক্ষক মুহাম্মদ উল্যাহ রাজীবের। তিনি বাঁচতে চান। এর জন্য কিডনি প্রতিস্থাপন করা জরুরি, যার জন্য যথেষ্ট অর্থ প্রয়োজন।

কিন্তু এই কলেজশিক্ষকের চিকিৎসার ব্যয় বহনের সামর্থ্য তার পরিবারের নেই। তাই তিনি নিজের জীবন বাঁচাতে দেশের বিত্তবান ও হৃদয়বান ব্যক্তিদের কাছে সহায়তার আবেদন জানিয়েছেন।

১৯৭১ সালে চাঁদপুরের মতলব উপজেলায় জন্ম হয় মুহাম্মদ উল্যাহ রাজীবের। পাঁচ ভাই এক বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়। বাবা ছিলেন সরকারি ব্যাংকের কর্মচারী। রাজীব ঢাকা কলেজ থেকে কৃতিত্বের সাথে এইচএসসি পাশ করেন। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতক (সম্মান) ও স্নাতকোত্তর পাশ করে পরিবারের হাল ধরতে শিক্ষকতা শুরু করেন। পরবর্তীতে সিঙ্গাপুরে পাড়ি জমান, সেখান থেকে ইংল্যান্ড তারপরে আয়ারল্যান্ড সবশেষে আবার ইংল্যান্ড যান। আর তখন ইউনিভার্সিটি অফ লন্ডন থেকে এলএলবি (অনার্স) সম্পন্ন করে।

ইংল্যান্ডে যাওয়ার আগেই তার বিয়ে হয়। তাদের ঘরে জন্মগ্রহণ করে একটি পুত্র সন্তান, নাম রাখে মাহিন। স্ত্রী-সন্তানকে বাংলাদেশে রেখে রাজীব থাকতেন লন্ডনে। লন্ডনে থাকা অবস্থায় ২০১০ সালে তার স্ত্রী সন্তানকে ফেলে চলে যায়। লন্ডনে অবস্থানের সময় একবার অসুস্থ হয়ে পড়েন রাজীব। চিকিৎসকরা জানান, তার ব্লাড ক্যান্সার হয়েছে। ডায়াগনোসিস ভুল ছিল কিংবা যেভাবেই হোক পরে তিনি সুস্থ হয়ে যান।

২০১৩ সালে রাজীবের মা মারা যান। তখন সন্তানের দেখাশোনার জন্য লন্ডন থেকে বাংলাদেশ চলে আসেন তিনি। সন্তানকে নিয়ে বোনের বাসায় থেকে ঢাকার সাভারের বিরুলিয়ার আকরান বাজারের একটি কলেজে তিনি শিক্ষকতা শুরু করেন।

২০১৬ সালে এই কলেজশিক্ষকের ফুসফুসে জটিলতা সৃষ্টি হয়। কয়েকবার হাসপাতালে ভর্তি হন। ডায়াবেটিস তার জটিলতা আরও বাড়িয়ে দেয়। মানুষ বিপদে পড়লে তার আশেপাশে আত্মীয়-স্বজনের সংখ্যা অনেক সময় কমতে থাকে। একই ঘটনা ঘটেছে এই কলেজশিক্ষকের জীবনেও।

এদিকে নতুন করে শুরু হয় কিডনি জটিলতা। আস্তে আস্তে দুটো কিডনি পুরোপুরি কার্যকারিতা হারায়। এখন সপ্তাহে দুইবার ডায়ালাইসিস নিতে হয় তাকে। তার স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সহপাঠীরা বিভিন্ন সময় চিকিৎসার ক্ষেত্রে সহায়তা করেছেন। রাজীব এখন চোখেও কম দেখেন। প্রায়শই রক্ত নিতে হয়। চিকিৎসার সামগ্রিক দেখভাল তার ছেলে মাহিনই করে।

এই কলেজশিক্ষক রাজীবকে বাঁচাতে তার কিডনি প্রতিস্থাপন জরুরি, যার জন্য যথেষ্ট অর্থ প্রয়োজন। তাই তিনি নিজের জীবন বাঁচাতে দেশের বিত্তবান ও হৃদয়বান ব্যক্তিদের কাছে সহায়তার আবেদন জানিয়েছেন। কোনো সহৃদয় ব্যক্তি যদি রাজীবকে সাহায্য করতে আগ্রহী হন তাহলে তার বিকাশ, নগদ এবং ব্যাংক একাউন্টে সাহায্য পাঠাতে পারেন।

bKash & Nagad Number: +880 1720-343638
NAME: MUHAMMAD ULLAH
A/C No: 20501290201020407
ISLAMI BANK BANGLADESH PLC
NEW MARKET BRANCH , DHAKA. (125263522)

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *